সোমবার, এপ্রিল ২৪, ২০১৭ ,১১ বৈশাখ ১৪২৪
২৫ ডিসেম্বর ২০১৬ রবিবার , ৮ : ৩৭ অপরাহ্ন

  • নগরীতে বাড়ছে নাসিক নির্বাচনোত্তর সহিংসতা

    x

    Decrease font Enlarge font

    nccটাইমস নারায়ণগঞ্জ (সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি): নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন শেষ না হতেই ৮নং ওয়ার্ডে নির্বাচনী সহিংসতা শুরু হয়েছে। শনিবার রাতে পরাজিত প্রার্থীর লোকজন নিয়ে বিজয় কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লার কর্মী সমর্থকদের রাতের আধারে বাড়ি বাড়ি গিয়ে হুমকি ধামকি ও মারধর করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

    এ ঘটনায় নির্বাচিত কাউন্সিলর রুহুল আমিন সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন।

    জানা গেছে, শনিবার রাত সাড়ে ১০ টায় নাসিক ৮ নং ওয়ার্ডে নির্বাচিত কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লার কাছে ক্ষমতাসীন দলের এক নেতার নাম ভাঙ্গিয়ে সন্ত্রাসী কায়দায় নাসিক নির্বাচনের ভোট ছিনতাই করতে না পেয়ে পরাজিত কাউন্সিলর মহসিন ভূঁইয়া ও তার সন্ত্রাসী ভাই সাইফুল ভূইয়া ও সেলিম ভূঁইয়া সন্ত্রাসী দলবল নিয়ে সৈয়দ পাড়া,তাঁতখানা এলাকায় রুহুল মোল্লার কর্মী সমর্থকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে হুমকি, ধামকি দেয়।

    এতে রুহুল আমিন মোল্লার সমর্থকরা প্রতিবাদ করায় মারধর ও কাফনের কাপড় পরিয়ে দেবে বলে হুমকি দেয় সাইফুল ভূঁইয়া। খবর পেয়ে নির্বাচিত কাউন্সিলর ও তার সমর্থকরা রাতে ২নং বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় রাস্তায় নেমে আসলে রুহুল আমিন মোল্লা তাদের শান্ত করে।

    খবর পেয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার এস আই রফিকুল ইসলাম রফিক ঘটনাস্থল এসে কাউন্সিলর এর মাধ্যমে তার সমর্থকদের শান্ত করে।

    পরে থানার গিয়ে কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লা মহসিন ভূঁইয়া, সাইফুল ভূঁইয়া ও সেলিম ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে তার সমর্থকদের হুমকি ও মারধরের ঘটনায় লিখিত অভিযোগ করেন।

    এব্যাপারে নাসিক ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লা বলেন, নির্বাচনের জয় পরাজয় থাকবে। তাই বলে আমার সমর্থককে মারধর করবে এটা মেনে নেওয়া যায় না। আমি সকল প্রতিদ্বন্দ্বী কাউন্সিলরদের প্রতি আহবান করছি ওয়ার্ডের উন্নয়নের স্বার্থে সকলে মিলে এক সাথে কাজ করি। কোন হানাহানি চাইনা। উন্নয়নের জন্য প্রতিযোগীতা করি।

    সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি মুঃ সরাফত উল্লাহ জানান, মারধর ও হুমকি দেওয়ার ঘটনায় মহসিন ও তার দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে কাউন্সিলর রুহুল আমিন লিখিত অভিযোগ দিয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

    এরআগেও সিদ্ধিরগঞ্জের বেশ কয়েকটি ওয়ার্ডে এবং বন্দর ২৪ ও ২৭ নং ওয়ার্ডে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় ২৩ জন আহত হন।

    • .