বুধবার, জুন ২৮, ২০১৭ ,১৩ আষাঢ় ১৪২৪
০১ জানুয়ারী ২০১৭ রবিবার , ৯ : ০৪ অপরাহ্ন

  • বকেয়া বেতনের দাবীতে নগরীতে গার্মেন্ট শ্রমিকদের মানববন্ধন

    x

    Decrease font Enlarge font

    16টাইমস নারায়ণগঞ্জ: ফতুল্লা কায়েম পুর অঞ্চলের টু-ডেজ নীট ফ্যাশন কারখানার শ্রমিকদের ২ মাসের বকেয়া বেতন-ভাতা পরিশোধ ও ন্যূনতম মোট মজুরি ১৬ হাজার টাকা নির্ধারণের দাবীতে রবিবার দুপুর ১২ টায় নাঃগঞ্জ প্রেসক্লাব সম্মুখে গার্মেন্টস শ্রমিকদের মানব বন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

    টু-ডেজ নীট ফ্যাশনের শ্রমিক নেত্রী রোকসানার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মানব বন্ধনে সংহতি জানিয়ে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র নাঃগঞ্জ জেলা কমিটির সভাপতি এম এ শাহীন, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন, জেলা কমিটির  সিনিয়র নেতা দুলাল সাহা, আব্দুস সালাম বাবুল, কারখার নারী শ্রমিক নাসিমা ও জুসনা প্রমুখ।

    মানব বন্ধনে বক্তারা বলেন টু-ডেজ নীট ফ্যাশন কারখানার মালিক প্রচলিত শ্রম ও শিল্প আইন না মেনে মনগড়া ভাবে কারখানা পরিচালনা করে আসছেন। সরকার ঘোষিত ন্যূনতম মজুরি ৫ হাজার ৩ টাকার ক্ষেত্রে তিনি শ্রমিকদের ৩ হাজার বা কারও ৪ হাজার টাকা করে বেতন দিচ্ছেন। তার মাঝে আবার মাসের পর মাস বেতন ভাতা বকেয়া রাখা তার অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। সবসময় শ্রমিকদের ২ মাসের বেতন বকেয়া হওয়ার পর ১ মাসের বেতন দিয়ে থাকেন তিনি। শ্রমিকরা যখনি বকেয়া বেতন পরিশোধের কথা বলে তখন কারখানার মালিক শ্রমিকদের নির্যাতন করে চাকুরিচ্যুৎ করার হুমকি দেয় এমন কি চাকুরি না করলে  বকেয়া পাওনা কোন দিনও দেয়া হবেনা বলে ভয় দেখিয়ে শ্রমিকদের জিম্মি করে কাজ করিয়ে নিচ্ছেন। বর্তমান বাজারে শ্রমিকরা প্রাপ্ত মজুরিতে মানবেতর জীবন যাপন করছে। কোন ভাবেই যখন আর চলছেনা তখন ভয়ভীতি উপেক্ষা করে বাধ্য হয়ে শ্রমিকরা বকেয়া বেতন-ভাতার দাবীতে আন্দোলন করছে। উক্ত কারখানার শ্রমিকদের সংকট নিরসনে কল-কারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর কার্য্যালয় বরাবর লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে সেই সাথে গার্মেন্টস মালিকদের সংগঠন বিকেএমইএ'কে জানানো হয়েছে। এ বিষয়ে শিল্প পুলিশ ইউনিট ৪, এর পরিচালক বরাবর ছিটি দিয়ে অবহিত করা হয়েছে। সুতারাং অনতিবিলম্বে টু-ডেজ নীট ফ্যাশন শ্রমিকদের বকেয়া বেতন-ভাতা পরিশোধের ব্যবস্থা না করা হলে শ্রমিকদের ন্যায় সঙ্গত দাবী আদায়ে বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তুলা হবে।

    বক্তারা আরও বলেন সবকিছুর মূল্য বৃদ্ধির  ফলে দৈনন্দিন জীবনের ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় শ্রমিকদের প্রাপ্ত মজুরিতে জীবন ধারণ করা অসম্ভব হয়ে পরেছে। অতএব অনতিবিলম্বে সরকার'কে মজুরি কমিশন বোর্ড কার্যকর করে গার্মেন্টস শ্রমিক'দের ন্যূনতম মূল মজুরি ১০ হাজার টাকা, ভাড়ী ভাড়া, যাতায়াত ভাতা ও চিকিৎসা ভাতাসহ মোট মজুরি ১৬ হাজার টাকা নির্ধারণের দাবী জানান ।