বুধবার, ফেব্রুয়ারী ২২, ২০১৭ ,৯ ফাল্গুন ১৪২৩
০৭ জানুয়ারী ২০১৭ শনিবার , ৮ : ৫৮ অপরাহ্ন

  • বোনের প্রতি ‘মনক্ষুন্ন’ ভাই, ঐক্য হয়নি ‘দৃশ্যমান’!

    x

    Decrease font Enlarge font

    03টাইমস নারায়ণগঞ্জ: আওয়ামীলীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার নিদের্শে দীর্ঘদিন পর দ্বন্দের অবসান ঘটিয়ে ভাই নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ শামীম ওসমান ও বোন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন মেয়র ডা: সেলিনা হায়াত আইভীর মধ্যে ঐক্যের সূচনা হলেও এখনো পর্যন্ত তা ‘দৃশ্যমান’ না হওয়ায় সন্দেহ যেন কিছুতেই কাটছেনা উৎসুক সাধারন জনগণসহ দলীয় নেতাকর্মীদের মাঝে। পাশাপাশি নির্বাচনের আগে ও পরে বোন আইভীর আচরনে ভাই শামীম ওসমান মনুক্ষন্ন হওয়ায় সন্দেহ যেন আরো বেশী জোরালো হয়েছে জনমনে।

    কেননা, গত ২২ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিতব্য নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে ঘিরে দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনার নির্দেশে সকল মান অভিমান ভুলে দলীয় প্রার্থী অতীতের চির প্রতিদ্বন্দী ডা: সেলিনা হায়াত আইভীর পক্ষে কাজ করেন শামীম ওসমান।

    জনমনে যেন এনিয়ে সন্দেহের কোন অবকাশ না ঘটে সেজন্য গত ৯ ডিসেম্বর সংবাদ সম্মেলন করে ছোট বোন আইভীর জন্য প্রয়োজনে সংসদ সদস্য পদ থেকে পদত্যাগ করে নির্বাচনী প্রচারনা চালানোর ঘোষণা দিয়েছিলেন শামীম ওসমান।

    সংবাদ সম্মেলনে আইভীর পক্ষে তার অবস্থান পরিস্কার করে শামীম ওসমান বলেছিলেন যে, আইভী আমার ছোট বোন, তার প্রতি আমার দোয়া ও ভালোবাসা রইলো। আইভী যদি মনে করে তার এই নির্বাচনে আমাকে (শামীম ওসমান) দরকার। আর যদি দলীয় প্রধান শেখ হাসিনা আপা আমাকে নির্দেশ দেয় তাহলে আমি এমপিত্ব থেকে পদত্যাগ করে, ছোট বোন আইভীর সাথে মানুষের ঘরে ঘরে যাবো, ভোট চাইবো। যে কোনো ভাবেই হোক আইভীকে বিজয়ী করে আনবো।

    কিন্তু তখন আইভী বড় ভাই শামীম ওসমানকে সংসদ সদস্য থেকে তার জন্য পদত্যাগ না করার অনুরোধ জানিয়েছিলেন।

    এরপর সেদিন সেদিন শামীম ওসমান ছোট বোন আইভীর জন্য নৌকা প্রতীক সম্বলিত দু’টি শাড়ী উপহারও পাঠিয়েছিলেন। বলেছিলেন, আমার দেওয়া এই শাড়ী পড়ে আইভী যখন গণসংযোগে বের হবে তখন যেনো মনে করে বড় ভাই শামীম ওসমান তার সাথেই রয়েছে। রয়েছে শামীম ওসমানের দোয়া ও ভালোবাসা। কিন্তু আইভী প্রচার-প্রচারনায় অংশ নেয়ার সময় শামীম ওসমানের দেয়া শাড়ীটি একদিনও পড়েনি, এমন কি বিজয়ী হওয়ার পরেও সেই শাড়ী পড়েননি।

    এমনকি আইভী বিজয়ী হবে নিশ্চিত প্রত্যাশা করে বিজয়ের পর আইভীর কাছ থেকে শামীম ওসমান আইসক্রীম খাবেন বলেও ঘোষণা দিয়েছিলেন।

    কিন্তু নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার পরে আইভী শামীম ওসমানের সাথে কোনো ধরনের সাক্ষাত তো করেইনি এমন কী মোবাইল ফোনেও কথা বলেনি, দেয়নি একটি ধন্যবাদও।

    যেই কারনে শামীম ওসমানের মনে একটু কষ্ট রয়েছে বলে তার ঘনিষ্ঠ সূত্র জানায়।

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শামীম ওসমানের ঘনিষ্ঠ একজন আওয়ামীলীগ নেতা অনেকটা ক্ষোভের সুরেই বলেন, অতীতের মান অভিমান ভুলে সিটি নির্বাচনে শামীম ওসমান আইভীর জন্য যে মহানুভবতা দেখিয়েছিলেন, আইভী কি এই মহত্বের প্রতিদান দিয়েছেন? নির্বাচনের প্রাক্কালে শামীম ওসমান তার ছোট বোন আইভীকে নৌকা প্রতীক সম্বলিত দুটি শাড়ী উপহার দিয়ে বিজয়ী হওয়ার পর আইভীর কাছ থেকে আইসক্রীম খাওয়ার মনোভাব ব্যাক্ত করেছিলেন। কিন্তু আইসক্রীম তো দূরের কথা আইভী বিজয়ী হওয়ার পরে শামীম ওসমানকে একটিবার ফোনও দেয়নি। তাছাড়া ও নির্বাচনের পূর্বে মনোনয়ন পত্র যখন আইভী জমা দিতে যাবে এর ঘন্টা খানেক আগে শামীম ওসমান আইভীকে কয়েকটা মেসেজ দিয়ে তার (আইভী) মনোনয়নপত্র কখন জমা দিবে আর কে কে তার সাথে যাবে এসব জানতে চাইলেও, আইভী শামীম ওসমানের মেসেজের কোনো উওর দেয়নি।

    তাই নির্বাচনের আগে ও বিজয়ী হওয়ার পরে শামীম ওসমানের প্রতি আইভীর এসব আচরনের কারনে শামীম ওসমান বেশ কষ্টই পেয়েছেন বলে দাবী করেন এমপির ঘনিষ্ঠজনেরা।

    তবে এব্যাপারে জানতে সাংসদ শামীম ওসমানের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি তার ব্যবহৃত মুঠোফোনটি রিসিভ করেননি।