বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১২, ২০১৯ ,২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
০২ মার্চ ২০১৯ শনিবার , ৬ : ২৫ অপরাহ্ন

  • রাজনীতি করতে এসেছি, ধান্ধা নয়: শামীম ওসমান

    x

    Decrease font Enlarge font

    001টাইমস নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান বলেছেন, রাজনীতি করতে এসেছি, ধান্ধা করতে আসি নাই। দিনের বেলা আওয়ামী লীগ ও রাতের বেলা বিএনপি এমন রাজনীতি আমরা করতে চাই না। দুই বার মন্ত্রীত্ব দিতে চেয়েছিল, হই নাই। প্রধানমন্ত্রীর মতো এত বড় মাপের নেত্রীর সাথে মন্ত্রী হবার আমার যোগ্যতা নেই। আমি একজন সাধারণ কর্মী হয়েই থাকতে চাই।

    শামীম ওসমান আরও বলেন, সাধারণ মানুষ সন্ত্রাস, চাঁদাবাজ, মাদক ও ভূমিদস্যুতা দেখতে চায় না। আজ থেকে এসবের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করলাম। এসব শুধু প্রশাসনের একার কাজ না, আমাদেরও দায়িত্ব আছে। শনিবার (২ মার্চ) বিকালে নগরীর দুই নম্বর রেলগেইট এলাকায় জনসভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাই, সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মো: শহীদ বাদল ও মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এড: খোকন সাহা। এসময় শামীম ওসমান আরও বলেন, নারায়ণগঞ্জবাসীর কাছে আমাদের পরিবারের অনেক ঋণ, এ ঋণ শোধ করবার মতো নয়। তিনি বলেন, ১৯৭৫ সালে খন্দকার মোশতাক আমাদের বাড়িতে ফোন দিয়েছিল। বাবা বাসায় না থাকায় আমিই ফোন ধরেছিলাম। তখন খন্দকার মোশতাক বললেন, তোমার বাবাকে দাও। বলেছিলাম, বাবা বাসায় নেই। তিনি তখন আমাকে বলেছিলেন তোমার বাবাকে বলো আমার সাথে শপথ নিতে তাকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বানাব। আমার বাবা সে প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছিলেন। সড়ক বন্ধ করে জনসভা করা প্রসঙ্গে শামীম ওসমান বলেন, রাজপথে সভা করায় অনেকের কষ্ট হয়েছে। কিন্তু যারা বঙ্গবন্ধুকে ভালবাসেন, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি তাদের হয় নাই। কারণ এই রাজপথেই আওয়ামী লীগের জন্ম। রাজপথই সকল দাবি আদায়ের জায়গা। সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন-জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি শুক্কুর মাহমুদ, মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক শাহ নিজাম, সাংগঠনিক সম্পাদক জাকিরুল আলম হেলাল, ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম সাইফ উল্লাহ বাদল, সাধারণ সম্পাদক এম শওকত আলী, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মজিবুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক হাজী ইয়াছিন মিয়া, মহানগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি চন্দন শীল, এড. ওয়াজেদ আলী খোকন, বন্দর থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি এম এ রশিদ, জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভানেত্রী প্রফেসর শিরিন বেগম, মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইসরাত জাহান খাঁন স্মৃতি,  জেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম চেঙ্গিস, মহানগর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন সাজনু, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সাফায়েত আলম সানী, সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর আব্দুল করিম বাবু, নাজমুল আলম সজল, সুলতান আহমেদ ভূইয়া, মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি মো. জুয়েল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক সাইফুদ্দিন আহমেদ দুলাল প্রধান, জেলা পরিষদ সদস্য জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ। সভা সঞ্চালনা করেন-জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এহসানুল হাসান নিপু। সভায় দুই নম্বর রেলগেইট থেকে চাষাড়া পর্যন্ত নেতাকর্মীদের ঢল নামে। সভাস্থল ছাড়িয়েও নেতাকর্মীদের উপস্থিতি নগরীর প্রায় সবক’টি সড়ক বন্ধ হয়ে যায়।