মঙ্গলবার, মার্চ ১৯, ২০১৯ ,৫ চৈত্র ১৪২৫
০৮ মার্চ ২০১৯ শুক্রবার , ৭ : ১৬ অপরাহ্ন

  • চাঁদাবাজ শ্যামলকে বাঁচাতে গিয়ে ফেঁসে যাচ্ছেন দারোগা!

    x

    Decrease font Enlarge font

    002টাইমস নারায়ণগঞ্জ: ফতুল্লায় ওসি নির্দেশ অমান্য করে চাঁদাবাজ শ্যামলকে বাচাঁতে গিয়ে ফেঁসে যাচ্ছেন দারোগা প্রবীর। চাঁদাবাজদের গ্রেফতারের ওসি নির্দেশ থাকলেও তাদের থানায় আদর আপ্যায়ণ করে সমঝোতায় বসায় ক্ষুব্ধ ওসি ওই দারোগার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থার সুপারিশ করেছেন। বৃহস্পতিবার রাতে চাঁদাবাজদের থানায় ডেকে এনে ইজিবাইক চালক ও মালিকদের সঙ্গে সমঝোতায় বসেন ওই দারোগা। গণমাধ্যমে খবর বেরোনোর পরে বিষয়টি নিয়ে নড়েচড়ে বসেছেন জেলা পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

    ওইদিন চাঁদাবাজদের নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে থানায় এসে অভিযোগ করেন অর্ধশত ইজিবাইকের চালক ও মালিকরা। ওইসময় ওসি তাত্ক্ষনিক চাঁদাবাজদের গ্রেফতারের নির্দেশ দেন এসআই প্রবীরকে। এনিয়ে থানায় ব্যাপক সমালোচনা হলে সমঝোতা বৈঠক ভেঙে দেন এসআই প্রবীর। ওই সময় ওসি শাহ মোহাম্মদ মঞ্জুর কাদের থানার বাইরে ছিলেন।

    ইজিবাইকের চালক ও মালিকরা জানান, ফতুল্লার কাশীপুরে কয়েক মাস ধরে যুবলীগ নেতা আনিসুর রহমান শ্যামল ওরফে চাচা শ্যামল ও আজিজুল হক তার সাঙ্গপাঙ্গরা জোড় করে ইজিবাইক ও রিকশার চালকদের কাছ থেকে দৈনিক ১০০ টাকা করে চাঁদা আদায় করছে। এ বিষয়ে কেউ প্রতিবাদ করলেই তাকে বেধরক মারধর করা হয়। গাড়ি থেকে বসার সিট খুলে নিয়ে যায়।

    এনিয়ে বুধবার রাতে ফতুল্লা থানার ওসি শাহ মোহাম্মদ মঞ্জুর কাদেরের কাছে লিখিত অভিযোগ দেন ইজিবাইক চালক ও মালিকরা। ওসি তাৎক্ষণিক অভিযুক্তদের  গ্রেফতারের জন্য নির্দেশ দেন এসআই প্রবীরকে।

    তবে এসআই প্রবীর জানান, সমঝোতা নয়। সমস্যা জানতে উভয় পক্ষকে নিয়ে বসেছিলাম। ওসি স্যার নির্দেশ দিয়েছিলেন সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারের, কিন্তু তখন তাদের পাইনি।

    ওসি মঞ্জুর কাদের জানান, আমি সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারের নির্দেশ দিয়েছি। আমার কথা অমান্য করলে আমি ঊর্ধ্বতন অফিসারদের জানিয়ে এসআইয়ের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়ার আবেদন করা হচ্ছে।