রবিবার, জুন ১৬, ২০১৯ ,২ আষাঢ় ১৪২৬
২৩ মার্চ ২০১৯ শনিবার , ৬ : ৪৫ অপরাহ্ন

  • সেই আমজাদ মাস্টারের দূর্নীতির তদন্ত প্রতিবেদন জমা হচ্ছে কাল!

    x

    Decrease font Enlarge font

    03টাইমস নারায়ণগঞ্জ: বক্তাবলীর কানাইনগর ছোবহানীয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আমজাদ হোসেনের বিরুদ্ধে আনিত দূর্নীতি তদন্তের প্রতিবেদন আগামীকাল রোববার (২৪ মার্চ) জমা হতে পারে। রূপকথার গল্পকে হার মানানো দূর্নীতির অভিযোগে অভিযুক্ত এই শিক্ষকের বিরুদ্ধে নানা দপ্তরে দেয়া অভিযোগের প্রেক্ষিতে গত ১২ মার্চ আনুষ্ঠানিক তদন্ত করেন জেলা শিক্ষা অফিসার শরীফুল ইসলাম। ওইদিন তিনি অভিযোগকারী সহ এলাকাবাসী লিখিত বক্তব্য নেন। অভিযোগের প্রত্যেকটি বিষয়ে পুঙ্খানুপুঙ্খ খোঁজÑখবর নিয়ে শিক্ষকদের সাথেও কথা বলেন।

    জেলা শিক্ষা অফিসার শরীফুল ইসলাম টাইমস নারায়ণগঞ্জকে জানান, অভিযোগের তদন্ত শেষ। তবে তদন্তের প্রয়োজনে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষকের কাছে বেশ কয়েকটি কাগজ চাওয়া হলেও তিনি দিতে গড়িমসি করেছেন।

    তদন্তে অভিযোগের প্রমাণ মিলেছে কী-না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বিষয়টি তদন্তাধীন। আমার কাজ হচ্ছে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে সঠিক রিপোর্টটি দেয়া। এর বেশি কিছুই বলা আমার পক্ষে সম্ভব নয়।

    কবে নাগাদ তদন্ত প্রতিবেদন জমা হচ্ছে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এ সপ্তাহে জমা দেয়া হবে।

    এর আগে গত বছরের ৪ জুলাই তৎকালীন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক রেজাউল বারী আকস্মিক স্কুল পরিদর্শনে আসার খবর পেয়ে নিজ কক্ষে তালা মেরে পালিয়ে গেলেন গিয়েছিলেন দূর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত কানাইনগর ছোবহানীয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আমজাদ হোসেন। ওইদিন স্কুলের দৈনন্দিন হাজিরা-খাতা, স্কুলের অবকাঠামো ও আনিত অন্যান্য অভিযোগের বিষয়ে বিস্তারিত খোঁজ-খবর নেন। তিনি শিক্ষক, এলাকাবাসী, শিক্ষার্থী ও এলাকার গণমান্যদের সাথে এ বিষয়ে কথা বলেন।

    আমজাদ মাস্টারের দূর্নীতিতে রূপকথাকেও হার মানায়::

    ‘যে শিক্ষক মানুষ গড়ে/ সে কী আবার দুর্নীতি করে?’-এ স্লোগানে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের এ প্রশ্নের উত্তর-ই শুধু দেননি স্থানীয়দের বিস্মিত করেছেন কানাইনগর ছোবহানীয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আমজাদ হোসেন। ৯ বছরের মেয়াদকালে তাঁর দুর্নীতির খতিয়ান যেন রূপকথার গল্পকেও হার মানায়।

    স্কুলটির সাবেক শিক্ষার্থীদের অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে দুর্নীতির এ মহাকা-! অনিয়ম দূর্নীতি শিক্ষকদের কোচিং বাণিজ্যের কারণে শিক্ষা ব্যবস্থা একেবারে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে। অভিযোগ উঠেছে, তিনি তাঁর মেয়দকালে ২ কোটি ৩৪ লক্ষ ৬০ হাজার ১শত ৬৭ টাকা দূর্নীতির মাধ্যমে আত্মসাৎ করেছেন।

    এ কারণে স্কুলের প্রধান শিক্ষক আমজাদ হোসেনের পদত্যাগ দাবি করে বিভিন্নখাতে তাঁর দুর্নীতির খতিয়ান জনসম্মুখে প্রকাশ করার দাবি তুলেছেন-বিদ্যালয়ের ১৯৯৭ ব্যাচের শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসী। এ দাবিতে এলাকায় বেশ কয়েক মাস ধরে আন্দোলন চালিয়ে আসছে ’৯৭ ব্যাচের শিক্ষার্থীরা।

    আন্দোলনকারীদের দেয়া তথ্যমতে, আমজাদ হোসেন স্কুলের পূন:ভর্তি বাবদ ৩২ লক্ষ ৭৬ হাজার, বিলম্ব অনুপস্থিত বাবদ ৩ লক্ষ ৭৮ হাজার টাকা, খেলাধুুলা খাতে ৯ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা, নির্মাণ খাতে ৯ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা, গ্রায়াচুটি বাবদ ১২ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা, বিদ্যুৎ বিল বাবদ ৮ লক্ষ ২৮ হাজার টাকা, মিলাদ বাবদ ৮ লক্ষ ৮২ হাজার টাকা, দূস্থ: তহবিলের ৩ লক্ষ ৭৮ হাজার টাকা, পাঠাগারের ৩ লক্ষ ৭৮ হাজার টাকা, গবেষণার ৩ লক্ষ ৭৮ হাজার টাকা, সাংস্কৃতিক খাতে ৩ লক্ষ ৭৮ হাজার টাকা, স্কাউটের ৬ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা, উন্নয়নের ৬ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা, কম্পিউটারের ৬ লক্ষ ৩০ হাজার, মসজিদ ফান্ডের ৬ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা, অগ্রগতি পত্র বাবদ ৫লক্ষ ৬৭ হাজার টাকা, মনোগ্রাম বাবদ ৫ লক্ষ ৬৭ হাজার টাকা, এসএসসি পরিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ফরম পূরন বাবাদ অতিরিক্ত ২৮ লক্ষ ৩ হাজার ১ শত ৬৭ টাকা, কৃষি ও গার্হস্থ্য অর্থনীতি বিষয়ে ব্যবহারিক পরীক্ষা বাবদ ৮ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা, উপবৃত্তিপ্রাপ্ত ছাত্র ছাত্রীদের সরকারি অনুদানের ৫ লক্ষ ৭৬ হাজার টাকা অর্থ আত্মসাৎ এর অভিযোগ করেন। এর প্রমাণ হিসেবে স্কুলের রশিদ ও ব্যাংক এ্যাকাউন্ট সহ নানা তথ্য-উপাত্ত্ব তুলে ধরা হয়।

    বক্তাবলী ইউনিয়ন মাদক নির্মুল কমিটির সভাপতি মুহাম্মদ আনোয়ার হোসেন বলেন, অর্থের বিনিময় অযোগ্য, দলীয় লোকদের নিয়োগ দিয়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটিকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নেওয়া হয়েছে। তিনি অযোগ্যদের বাদ দিয়ে মেধাবীদের নিয়োগ দেওয়ার মাধ্যমে লেখাপড়ার পরিবেশ ফিরিয়ে আনার দাবী জানান। এছাড়াও বিভিন্ন সময় স্কুলের দূর্নীতির সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নিতে হবে।

    বক্তাবলী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কামরুল ইসলাম বলেন, আমজাদ হোসেন একা দূর্নীতি করেন নাই। কিন্তু স্কুলের প্রধান শিক্ষক হিসেবে তিনিই মূল, এর দায় এড়াতে পারেন না। আমরা অভিযোগের সুষ্ঠ তদন্ত প্রতিবেদন আশা করছি। এরপর বিভিন্ন সময়ে দূর্নীতির সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধেও আমরা মাঠে নামব।